আজ ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে বিশ্ব হার্ট দিবস পালিত


‘হৃদয় দিয়ে হৃদয়কে ভালোবাসুন, পরিবেশ ও প্রকৃতিকে রক্ষা করুন’। আজ বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টায় বিশ্ব হার্ট দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে সেমিনারের আয়োজন করে অপসোনিন ফার্মা। সেমিনারে বিশ্ব হার্ট দিবস উপলক্ষে কেক কাটা হয়। এরপর দিবসটি উপলক্ষে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। এটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

জেনারেল হাসপাতালে আয়োজিত বৈজ্ঞানিক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ হাইপারটেনশান অ্যান্ড হার্ট ফেইলিওর ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা. প্রবীর কুমার দাশ বলেন, বিশ্বে মানুষের মৃত্যুর সবচেয়ে বড় কারণগুলোর একটি হার্ট অ্যাটাক। অসংক্রামক ব্যাধির মধ্যে হদরোগ বিশ্বব্যাপী ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। ধূমপান, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন ও হাঁটাচলা না করার কারণে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ছে। বিশ্বে এক-তৃতীয়াংশ মৃত্যুর জন্য দায়ী হার্ট অ্যাটাক বা হৃদরোগ।

বাংলাদেশেও হার্ট অ্যাটাক বা হৃদরোগ এখন খুবই সাধারণ ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। হৃৎপিণ্ড থাকলে হৃদয়বান হওয়া যায় না। হার্টকে নিয়মিত চেকআপে রাখতে হবে। করোনাকালীন সময়ে যারা মৃত্যুবরণ করেছে তাদের মধ্যে অধিকাংশেরই মৃত্যু হার্ট অ্যাটাকে। মানুষকে হার্ট অ্যাটাকের ঘাতক ব্যাধি থেকে বাঁচাতে হলে সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে সর্বত্র সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। নিজেদেরকে ডাক্তার না ভেবে গুরুত্বপূর্ণ রোগী মনে করে হার্টের রোগীদের আন্তরিকভাবে চিকিৎসা দিতে হবে।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ও উপ-পরিচালক ডা. সেখ ফজলে রাব্বির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈজ্ঞানিক সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. মো. সাখাওয়াত উল্লাহ ও জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী। জেনারেল হাসপাতালের কনসালটেন্ট (অ্যানেস্থেসিয়া) ডা. মৌমিতা দাশের সঞ্চালনায় সেমিনারে বিশ্ব হার্ট দিবস সম্পর্কে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিনিয়র কনসালটেন্ট (কার্ডিওলজি) ডা. আবুল হোসেন শাহীন। বক্তব্য দেন আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. মোস্তফা জামাল হায়দার, সিনিয়র কনসালট্যান্ট (অর্থো সার্জারি) ডা. অজয় কুমার দাশ, কনসালট্যান্ট (মেডিসিন) ডা. হামিদুল্লাহ মেহেদী, কনসালটেন্ট (অ্যানেস্থেসিয়া) ডা. রাজদ্বীপ বিশ্বাস ও অপসোনিন ফার্মার প্রতিনিধি মো. কুতুবুজ্জামান।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর