আজ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

সংগৃহীত ছবি

আন্তর্জাতিক অভিবাসনে নারী মাত্র ১০ শতাংশ!


ভাগ্য বদল কিংবা জীবিকার অনুসন্ধানে বিদেশে পাড়ি জমানো অভিবাসীদের মধ্যে এখনও পিছিয়ে আছেন বাংলাদেশের নারীরা। অভিবাসনে নারীর অংশগ্রহন ক্রমে বাড়লেও তা নিতান্তই অল্প। রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চের (রামরু) এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ২০২২ সালে মোট আন্তর্জাতিক অভিবাসনের মাত্র ১০ শতাংশ স্থান দখল নিয়েছেন নারীরা। তবে সুখবর হলো ২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালে বাংলাদেশ থেকে নারী অভিবাসন বেড়েছে ৩৫ দশমিক ৭ শতাংশ।

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্যানুযায়ী, করোনা ভাইরাসের কারণে ২০১৯ সাল থেকে আন্তর্জাতিক অভিবাসন খাতে দুরাবস্থা তৈরি হয়। তবে ধীরে ধীরে এই পরিস্থিতির উত্তোরণ ঘটছে। ২০২১ সালে বাংলাদেশ থেকে মোট ৬ লাখ ১৭ হাজার ২০৯ জন কর্মী কাজের উদ্দেশে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গেছেন। ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত গেছেন ১০ লাখ ২৯ হাজার ৫৪ জন। এসময়ে অভিবাসন প্রবাহ প্রায় ৮১ দশমিক ৮৮ শতাংশ বেড়েছে।

২০২২ সালে বিদেশ যাওয়া নারী অভিবাসী কর্মীর সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে বলে বিএমইটি সূত্রে জানা গেছে। বিদায়ী বছরের নভেম্বর পর্যন্ত ৯৯ হাজার ৬৬৮ জন নারী কর্মী কাজের জন্য বিদেশ গেছেন। ২০২১ সালে এ সংখ্যা ছিল ৮০ হাজার ১৪৩ জন। যে হারে নারী কর্মীরা কাজের জন্য বিদেশ যাচ্ছেন, তা ডিসেম্বর পর্যন্ত অব্যাহত থাকলে গত বছরের তুলনায় এ বছর নারী অভিবাসন প্রবাহ ৩৫ দশমিক ৭ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে।

জানা গেছে, চলতি বছর সবচেয়ে বেশি কর্মী গেছেন সৌদি আরব। সংখ্যায় তা ৫ লাখ ৭৫ হাজার ৫০৭ জন এবং মোট অভিবাসনের ৫৬ শতাংশ। ১৫ শতাংশ নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ওমান (১ লাখ ৫৮ হাজার ৭৪৮ জন)। ৯ শতাংশ নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে আছে সংযুক্ত আরব আমিরাত (৯৪ হাজার ৫৮৯ জন)। এরপর যথাক্রমে চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ স্থানে আছে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও কাতার।

তথ্যসূত্র: পূর্বকোণ


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর