আজ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সংগৃহীত ছবি

নাগালের বাইরে বাজার, নিম্ন-মধ্যবিত্তের নাভিশ্বাস


অনলাইন ডেস্কঃ বাজারে প্রায় সব পণ্যের দাম নিম্ন-মধ্যবিত্তের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে, কোনো কিছু কিনতে গেলেই বেরুচ্ছে দীর্ঘশ্বাস। সম্প্রতি নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নিত্যপ্রয়োজনীয় কয়েকটি পণ্যের দাম ঠিক করে দিলেও বাজারে চলছে এখনও সেই বাড়তি দামই। এছাড়াও সবজি ও মাছ মাংসের দরও কমেনি।

সরজমিন দেখা গেছে, খুচরা দোকানগুলোতে প্রতিকেজি আলু ৪৮ টাকা, প্রতি ডজন ডিম ১৫০ টাকায় (প্রতি পিসের দাম পড়ছে ১২ টাকা ৫০ পয়সা), প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অপরদিকে নগরের খুচরা দোকানগুলোতে ভালমানের পেয়াজ ৬৫ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভ্যানগাড়িতে কিছুটা নিম্নমানের পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৬০ টাকায়।

অপরদিকে মাছ, সবজিও বিক্রি হচ্ছে আগের বাড়তি দরেই। প্রতিকেজি টমেটো ১শ, কাঁচামরিচ ১২০, মুলা ৫০, করলা ৬০, চিচিঙ্গা ও বেগুন ৫০, লাউ, পটল, মিষ্টি কুমড়া ও ঢেঁড়শ ৪০, কচুর ছড়া ৭০ ও পেপে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাছের বাজারে প্রতিকেজি পাবদা ৪৫০, রুপচাদা ৮শ, রুই ৩২০, কাতলা ৩৪০, লইট্টা ১৮০, পাংগাস ১৮০ থেকে ২শ, চিংড়ি ৭শ ও তেলাপিয়া ২৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

নগরীর হালিশহর এলাকার আল মদিনা স্টোরের মালিক মো. নাসির বলেন, ‘সরকার কয়েকটি পণ্যগুলোর দাম নির্ধারণ করে দিয়েছেন। ঘোষণার সাথে সাথে নতুন দরে পণ্য বিক্রি করা সম্ভব হয় না। কারণ আমাদের কাছে থাকা পণ্যগুলো আগের চালানের। পুরনো চালানের পণ্য নতুন দরে বিক্রি করলে আমাদের লস। তাই নতুন দরের পণ্য পেতে হলে নতুন চালানের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।’

আরও পড়ুন টাকার মান কমায় কমছে না নিত্যপণ্যের দাম

ঈদগা কাঁচাবাজারে কথা হয় ওই এলাকার বাসিন্দা আবু সুফিয়ানের সাথে। তিনি বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা হল সবচেয়ে বড় প্রতারক। তারা দাম বাড়ানোর ঘোষণা আসলে পুরনো চালানের পণ্য নতুন দরে বিক্রি করে। দাম কমানোর সিদ্ধান্ত আসলে তাদের অজুহাতের শেষ নেই। নতুন দরের কোন সুফল আমরা পাচ্ছি না। সয়াবিন তেলের বোতল কিনেছি ১৭৫ টাকায়।’

কনজিউমার এসোশিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন বলেন, ‘সরকার ভোক্তার ভোগান্তি কমাতে উদ্যোগী হয়েছেন। নানাভাবে চেষ্টা করছেন। এখন কাজ হল কঠোরভাবে বাজারটা মনিটরিং করা। অপরাধ প্রমাণিত হলে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা।’

জানতে চাইলে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ফয়েজ উল্যাহ সিভয়েসকে বলেন, ‘আজ থেকেই আমরা বাজার মনিটরিং শুরু করব। আজ নগরের রিয়াজুদ্দীন বাজারে অভিযান পরিচালনা করব। প্রতিদিন আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে ১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।’

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (১৪ আগস্ট) সরকার নির্ধারিত দাম অনুযায়ী, খুচরা বাজারে প্রতিটি ডিম সর্বোচ্চ ১২ টাকা, প্রতি কেজি আলু সর্বোচ্চ ৩৫ থেকে ৩৬ টাকা, পেঁয়াজের দাম ৬৪ থেকে ৬৫ টাকা এবং বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৬৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তথ্যসূত্র: সিভয়েস২৪


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর