আজ ১৮ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১লা এপ্রিল, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ম্যাচ বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণে


স্পোর্টস ডেস্ক

হোয়াইটওয়াশ এড়াতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের শেষটিতে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। যেখানে বাংলাদেশের দেওয়ার ২৪৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেট হারিয়েছে ইংলিশরা। দলীয় ১৫৮ রানে ইংলিশ অধিনায়ক জস বাটলারকে ব্যক্তিগত ২৬ রানে এলবি করে ফেরান স্পিনার তাইজুল ইসলাম।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৩৭ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৬৬ রান করেছে ইংল্যান্ড।

২৪৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দুরন্ত শুরু পায় ইংল্যান্ড। ৯ ওভারে দুই ওপেনার জেসন রয় ও ফিল সল্ট ৫৪ রান তুলে ফেলেন। তবে নবম ওভারের শেষ বলে ফিল সল্টকে ফিরিয়ে ব্রেকথ্রু এনে দেন সাকিব আল হাসান। মাহমুদউল্লাহর ক্যাচে পরিণত হওয়া সল্ট ২৫ বলে ৭টি চারে ৩৫ রান করেন।

পরের ওভারে নতুন ব্যাটার ডেভিড মালানকে শূন্য রানে সেই মাহমুদউল্লাহর ক্যাচ বানান পেসার এবাদত হোসেন। ১১তম ওভারে আরেক ওপেনার জেসন রয়কে ব্যক্তিগত ১৯ রানে সরাসরি বোল্ড করেন সাকিব।

দলীয় শতকের পর চতুর্থ উইকেট হারায় ইংলিশরা। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে ব্যক্তিগত ২৩ রানে ফেরেন স্যাম কারান। জেমস ভিন্সের সঙ্গে ৪৯ রানের জুটি গড়েন কারান। ২৭তম ওভারে উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমের ক্যাচে ৩৮ রান করা জেমস ভিন্সকে ফেরান সাকিব। পরের ওভারে নতুন ব্যাটার মঈন আলীকে বোল্ড করেন এবাদত।

আজ সোমবার দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হয়। যেখানে প্রথমে ব্যাট করে নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসানের হাফসেঞ্চুরিতে ৪৮.৫ ওভারে ২৪৬ রানে অলআউট হয়েছে স্বাগতিকরা।

টস জিতে এর আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক তামিম ইকবাল। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনার লিটন দাস ও তামিম ইকবালকে হারায় বাংলাদেশ। তাদের দুজনকেই তুলে নেন পেসার স্যাম কারান। প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে শূন্য রানে কারানের বলে উইকেটরক্ষক জস বাটলারকে ক্যাচ দেন লিটন। আর তৃতীয় ওভারের শেষ বলে ৬ বলে ১১ করে জেমস ভিন্সকে ক্যাচ দেন অধিনায়ক তামিম।

নাজমুল হোসেন শান্ত ও মুশফিকুর রহিম জুটিতে লড়াইয়ে ফেরে স্বাগতিকরা। তবে দলীয় ১১৫ রানে রান আউটের শিকার হন শান্ত। ৭১ বলে ৫টি চারে ৫৩ করেন তিনি। এটি তার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় হাফসেঞ্চুরি। জুটিতে তারা ১২৮ বলে ৯৮ রান তোলেন।

রশিদ খানের পরপর দুই ওভারে বোল্ড হন মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। মুশফিক ৯৩ বলে ৬টি চারে ৭০ করেন। এটি তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৪৩তম ফিফটি। আর ৮ রানে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ।

এরপর দলীয় দুশর পর ক্রিস ওকসের বলে ব্যক্তিগত ১৫ রানে মাঠ ছাড়েন আফিফ হোসেন। আর তাইজুল ইসলামকে নিজের ক্যাচে ফেরান জোফরা আর্চার। আর্চারের দ্বিতীয় শিকার হন সাকিব আল হাসান। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার মাত্র ৭১ বলে ৭টি চারে ৭৫ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলেন। এটি তার ওয়ানডের ৫২তম হাফসেঞ্চুরি।

ইংলিশ বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন জোফরা আর্চার। দুটি করে উইকেট দখল করেন স্যাম কারান ও আদিল রশিদ।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম (উইকেটকিপার), সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, এবাদত হোসেন, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান।

ইংল্যান্ড একাদশ: জেসন রয়, ফিল সল্ট, ডেভিড মালান, জেমস ভিন্স, স্যাম কারান, জস বাটলার (উইকেটকিপার), মঈন আলী, ক্রিস ওকস, রেহান আহমেদ, আদিল রশিদ, জোফরা আর্চার।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর