আজ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সংগৃহীত ছবি

৭ম আন্তর্জাতিক সুফি সম্মেলন ১৭ নভেম্বর থেকে শুরু


নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী ১৭ ও ১৮ নভেম্বর নগরীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘৭ম আন্তর্জাতিক সুফি সম্মেলন’। সম্মেলনের দুই দিনে মোট চারটি একাডেমিক সেশনে উনিশটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হবে। এছাড়া উদ্বোধনী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে থাকবে সুফি সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন। আজ মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের এস রহমান হলে সম্মেলনটির প্রস্তুতি জানাতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে মাইভাণ্ডারি একাডেমি।

সুফি সংগঠনটি জানায়, এবারের সম্মেলনে উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি হিসেবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দীন চৌধুরী এবং সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর এম সিকান্দর খান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ইমেরিটার্স, সাউথ—ইস্ট ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য ড. এম শমসের আলী, এস জেড এইচ এম ট্রাস্টের সম্মানিত সচিব অধ্যাপক এ ওয়াই এম এমডি জাফর, ৭ম জাতীয় সুফি সম্মেলন উদযাপন পর্ষদের আহ্বায়ক ও চ.বি ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের প্রাক্তন সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ হেলাল উদ্দীন, পর্ষদের সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চ.বি আরবি বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জাফর উল্লাহ, একই বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক ড. হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ নুর হোসাইন, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়ো টেকনোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এস এম মুর্শিদুল আলম ও প্রভাষক মো. জিবরান আলম, প্রফেসর আবু তাহের, মাইজভাণ্ডারী একাডেমির সদস্য সচিব ও এস জেড এইচ এম ট্রাস্টের মুখ্য সমন্বয়ক অধ্যাপক জহুর উল আলম এবং ট্রাস্টের প্রশাসনিক ও সমন্বয় কর্মকর্তা তানভীর হোসাইন প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, শাহানশাহ সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্টে’র গবেষণামূলক প্রতিষ্ঠান ‘মাইজভাণ্ডারী একাডেমি’ ২০১০ সাল থেকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সুফি সম্মেলনের আয়োজন করে আসছে। ইতোমধ্যে ২টি জাতীয় ও ৪টি আন্তর্জাতিক সুফি সম্মেলন আয়োজন করেছে। বিগত সম্মেলনসমূহে দেশবরেণ্য ও খ্যাতিমান উলামা মাশায়েখ ও শিক্ষাবিদ ছাড়াও মালয়েশিয়া, ভারত, পাকিস্তান, মিশর, সুদান, জর্ডান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, ইরাকসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সুফি স্কলারগণ উপস্থিত ছিলেন। এবারের সম্মেলনের মটো হিসেবে ‘উপমহাদেশের শান্তি সম্প্রীতি সুরক্ষায় দরবেশগণের ভূমিকাঃ বর্তমান প্রেক্ষিত’ নির্ধারণ করা হয়েছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর