আজ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ছবি: সাতকানিয়ায় লোডশেডিং পরিস্থিতি সম্পর্কে জানাচ্ছেন ডিজিএম মো. ইব্রাহীম

সাতকানিয়ায় তাপদাহের মাঝে লোডশেডিংয়ে অসহনীয় জনভোগান্তি


নুরুল আজম সিকদার, সাতকানিয়াঃ উপজেলায় গত কিছুদিন ধরে লোডশেডিং বেড়েছে। একদিকে তীব্র তাপদাহ, অন্যদিকে ঘন ঘন লোডশেডিং; এতে জনভোগান্তি পৌঁছেছে চরম পর্যায়ে। কোনো কোনো গ্রামে সারাদিনে ৫ থেকে ৭ ঘন্টা থাকছে না বিদ্যুৎ।

অসহনীয় তাপদাহের মধ্যে লোডশেডিংয়ের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও কষ্ঠে পাঠদান ও অধ্যয়ন করছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এতে উপজেলার শিক্ষা ব্যবস্থাতেও বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

আরও পড়ুন চট্টগ্রামে ঘন ঘন লোডশেডিং

এ প্রসঙ্গে আলাপকালে ছদাহা ইউনিয়নের বাসিন্দা খোরশেদ আলম বলেন, ‘গরমকাল আসার পর থেকে কারেন্ট খুব ডিস্টার্ব করতেছে। দিনে রাতে সবসময়ই কারেন্ট চলে যাচ্ছে। এতে বাচ্চাদের লেখাপড়াসহ গৃহস্থালী কাজে ব্যঘাত ঘটতেছে।’

কেন বিদ্যুত সরবরাহে এত বেশি লোডশেডিং? জানতে চাইলে চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সাতকানিয়া জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. ইব্রাহীম চাটগাঁর সংবাদকে বলেন, ‘সাতকানিয়াতে ৭৫ হাজার গ্ৰাহক রয়েছে, তাদের বিদ্যুৎ সেবা প্রদানের জন্য ২০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের প্রয়োজন। তবে বতর্মানে ৮ থেকে ১০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা যাচ্ছে। অর্থাৎ ঘাটতি থাকছে ১০ থেকে ১২ মেগাওয়াট। এ কারণে গ্ৰাহক সেবা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।’

তবে অতীতের তুলনায় বর্তমানে ধীরে ধীরে কাটছে এ সংকট। লোডশেডিং যথাসম্ভব কমিয়ে আনতে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর প্রচেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান ডিজিএম ইব্রাহিম।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর