আজ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সংগৃহীত ছবি

কাকাকে কী ভুলে গেছেন?


অনলাইন ডেস্কঃ এই প্রজন্মের অনেকে হয়ত চিনবেন না তাকে তবে ’৯০ এর দশক থেকে যারা ফুটবলপ্রেমী তারা কাকাকে ভুলেননি। ব্রাজিলের পেশাদার ফুটবল তারকা রিকার্ডো কাকার পুরো নাম রিকার্ডো আইজ্যাকসন ডস স্যান্টোস ল্যাইথে। কিন্ত সারাবিশ্ব তাকে কাকা নামেই চিনতো। এই মিডফিল্ডারের গায়ে থাকতো ১০ নাম্বার জার্সি। তাহলেই বুঝুন ওজনটা কেমন ছিলো তার?

মাঠ দাপিয়ে বেড়ানো এই এটাকিং ফরোয়ার্ডকে সমীহ করতো প্রতিপক্ষ দল। ২১ এপ্রিল তার জন্মবার্ষিকী ছিলো। ১৯৮২ সালে এই দিনটিতে ব্রাজিলের গ্রামা শহরে জন্মগ্রহন করেছিলেন তিনি।

পড়েছিলেন হাঁটুর ইনজুরিতে। নাহলে হয়ত অসংখ্য অর্জনের মতো বিশ্বসেরার তকমাটাও মিলতো তার বরাতে। কিন্তু ইনজুরি পুরোপুরি সেরে না উঠতেই সেবার দেশের হয়ে বিশ্বকাপ খেলতে হয়েছিলো তাকে। নাহলে টিমে ভরসা পাচ্ছিলেন না দুঙ্গা। তবে ভাগ্য সহায় হয়নি তার। বিশ্বকাপ শেষে আবারো ইনজুরিতে মাঠ থেকে ছিটকে পড়েন, এরপর আর ফর্মে ফেরা হয়নি তার।

আরও পড়ুন প্রকাশ্যে মেসিদের নতুন জার্সি

ব্রাজিলের পাশাপাশি খেলেছেন কয়েকটি ক্লাবের হয়ে, ১৫ বছর বয়সে পেশাদার ফুটবল খেলা শুরু করেন সাও পাওলো ক্লাবের হয়ে। এরপর এসি মিলান, রিয়্যাল মাদ্রিদ, অরলান্দো সিটির হয়েও খেলেন তিনি। রোনালদিনহো কিংবা রোনালদোদের মতো চিরাচরিত সাম্বা স্কিল না থাকলেও কাকা নিজের স্টাইলেই ছিলেন প্রতিপক্ষের জন্য বিধ্বংসী।

‘তার সবই আছে – চমৎকার কৌশল, গতি, ভিশন, অসাধারণ পাসিং এবং গোল করার ক্ষমতা। চেলসিতে খেললে আপনাকে সেরাদের পক্ষে বিপক্ষে খেলতে হবে, কিন্তু কাকা হচ্ছে একমাত্র প্লেয়ার যার খেলা দেখতে আমি টাকা খরচ করতে রাজি।’ – ২০০৯ এ একটি সাক্ষাতকারে বলেছিলেন ল্যাম্পার্ড। কেউ যখন সেরা ফুটবলটাই খেলেন একমাত্র তখনি ল্যাম্পার্ডের মত কেউ এমন মন্তব্য করতে পারেন।

মাত্র আট বছর বয়সেই ফুটবল খেলা শুরু করেন তিনি, টেনিসও খেলতেন কাকা। ব্রাজিলকে বিশ্বকাপ ছাড়াও ২০০১ সালে ফিফা ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ চ্যাম্পিয়নশীপ জিতিয়েছিলেন তিনি। তার অবদানে ব্রাজিলের বড় সাফল্য আসে কনফেডারেশন কাপে। ২০০৫ এবং ২০০৯ এ টানা দুইবার ব্রাজিল জিতে নেয় এই ট্রফিটি। ২০০৯ এর কনফেডারেশন কাপে ছিলেন সেরা খেলোয়াড়। ২০১০ বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে কাকা ছিলেন ব্রাজিলের প্রধান খেলোয়াড়। ২০১৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর অবসর গ্রহণ করেন তিনি ফুটবলের এই কিংবদন্তী।

তথ্যসূত্র; সংগৃহীত


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর