আজ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

হাটহাজারী ভূমি অফিসে গালাগাল ও অপমান সইতে না পেরে মৃত্যুর অভিযোগ


মোঃ শোয়াইব,হাটহাজারী

চট্টগ্রামের হাটহাজারী ভূমি অফিসের দুই অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে এক বৃদ্ধকে গালাগাল ও অপমানের অভিযোগ উঠেছে। এমনকি ঐ অপমান সইতে না পেরে বৃদ্ধ হার্ট এটাকে মৃত্যুবরণ করেছেন এমন অভিযোগ তোলেন তার পরিবার।অপমানের শিকার ঐ বৃদ্ধের নাম আব্দুল মোনাফ (৬২)। হাটহাজারী উপজেলার উত্তর ফতেয়াবাদ পশ্চিম খাগড়িয়া ছড়ারকুল এলাকার বাসিন্দা। জানা গেছে, গত আগস্টের প্রথম সপ্তাহে ভূমি অফিসের এই দুই কর্মচারী বিজয় নন্দন বড়ুয়া ও নিউটন বড়ুয়া তার সাথে দূর ব্যবহার করেন। পরবর্তীতে তিনি সেখান থেকে ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

মোনাফের মেয়ে আইরিন আক্তার অভিযোগ করে বলেন, তার মৃত সৎ মায়ের পৈতৃক সূত্রে পাওয়া কিছু জমি হাটহাজারী উপজেলা ভূমি অফিসের কিছু অসাধু কর্মচারী জসিম উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির নামে নামজারি খতিয়ান করে দেন। জমাভাগ মামলা নম্বর গ-২৩৯১ এবং গ-২১৪৯/১২‌। যেখানে জমির পরিমাণ ০০৩০০ শতাংশ। তাদের অভিযোগ গত ২০১৭ সালে উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ করে সরকার। ঐ জমির মধ্যে দুটি খতিয়ান বাতিলের জন্য ২০১৯ সালে ডিসেম্বর মাসে সহকারী কমিশনার ভূমি বরাবর আবেদন করেন তার বাবা আব্দুল মোনাফ ও তার বড় বোন মিনু আক্তার। কিন্তু তিন বছরের বেশি সময় ধরে উক্ত অফিসে তারা ঘোরাঘুরি করলও সেই খতিয়ান বাতিল করেনি বলে অভিযোগ তাদের। তাদের অভিযোগ জসিমের কাছে থেকে অনৈতিক লেনদেন করে তাদের খতিয়ানভুক্ত জায়গাগুলি ভূমি অফিসের এই দুই কর্মচারী জসিমের নামে করে দেন।

এ বিষয়ে জানতে গেলে তার বাবাকে অফিস সহকারী বিজয় নন্দন বড়ুয়া ও নিউটন বড়ুয়া খুব বিশ্রী ব্যবহার ও গালাগাল করেন। এতে প্রচণ্ড অপমান বোধে তার বাবার মধ্যে কাজ করে এবং হঠাৎ তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন। পরবর্তীতে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে বেশ কয়েকদিন চিকিৎসা করে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু তিনি এই অপমান সইতে না পেরে গত ২৩ সেপ্টেম্বর মারা যান। অভিযোগকারী আইরিন, বিজয় নন্দন বড়ুয়া ও লিটন বড়ুয়ার উপযুক্ত শাস্তির দাবি করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত বিজয় নন্দন বড়ুয়া বলেন, মামলা খারিচ হওয়ার বিষয়ে আমি তাকে বুঝায়। কিন্তু তিনি আমাকে বলেন আমরা অনৈতিকভাবে টাকা পয়সা নিয়ে তার বিপক্ষে রায় দিয়েছি এবং মামলা খারিজ করে দিয়েছি। পরবর্তীতে তিনি মা-বাবা ধরে আমাকে গালিগালাজ শুরু করেন। রাগের মাথায় আমি তাকে বেয়াদব এবং বের হয়ে যাওয়ার জন্য জোর গলায় বলি। তবে তার হার্ট অ্যাটাকের মত এমন কোনো বিষয় এখানে ঘটেনি। এছাড়াও এই ধরনের অধিগ্রহণ করা জমির উপর ভূমি অফিসের তেমন কোন দায়-দায়িত্ব থাকে না। এটি সম্পূর্ণ বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের বিষয়। এ বিষয়টি ওনাকে বুঝালেও তিনি না বুঝেই আমার উপর রেগে আগুন হয়ে প্রচণ্ড ক্ষোভে গালিগালাজ করেন।

আরেক অভিযুক্ত নিউটন বড়ুয়া জানান, আমার সহকর্মী ওনাকে সব কিছু বুঝিয়ে বলার পর উনি হুট করে রেগে গালিগালাজ শুরু করেন। পরে আমার সহকর্মী বেয়াদব বলে বের হয়ে যেতে বলেন।পরে আমিও বের হতে বলাই তিনি আরো ক্ষুব্ধ হয়ে আমার মা-মাসি ধরে গালিগালাজ শুরু করেন। এতে আমরা ওনাকে অফিস থেকে বের হয়ে যেতে বলি। ভিডিওর বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, এখানে অনেক কিছু দেওয়া হয়নি। যেখানে ওনার গালিগালাজ রয়েছে ভিডিওর সেই অংশটুকু কেটে নেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হাটহাজারী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আবু রায়হান বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আসলে আমি অবগত ছিলামনা। সেদিন আমি অফিসের কাজে বাইরে থাকার সুবাদে এই ধরনের একটি ঘটনা ঘটেছে। তবে বিষয়টি আমরা দেখে তদন্ত করে কারো কোন গাফিলতি থাকলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে বিষয়টি নিয়ে রবিবার থেকে একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর ঘটনা সঠিক তদন্তের মাধ্যমে উপযুক্ত বিচারের দাবি করছেন সকলে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর