আজ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

চুল পড়া

অকালে চুল পড়া রোধে ৫ খাবার


অকালে যাদের চুল পড়ে যায় তাদের মধ্যে মানসিক বিড়ম্বনা ভর করে। ঘন, মজবুত ও স্বাস্থ্যকর চুল কে না ভালোবাসে? যত্নআত্তির পরও চুল পড়ার সমস্যা থেকেই যায়। প্রয়োজন পুষ্টি উপাদানের। তাই নিয়মিত খেতে হবে পুষ্টিকর খাবার।

কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো চুল পড়া রোধ করতে সহায়তা করে-

পালং শাক: সবুজ এই শাক চুলের বৃদ্ধির জন্য চমৎকার কাজ করে। ভিটামিন ‘সি’ ও এ, আয়রন এবং ফলিডে ভরপুর। নিয়মিত পালং শাক খেলে চুলের বিস্ময়কর উন্নতি হবে। পালং শাক আয়রনসমৃদ্ধ হওয়ায় চুলের বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী। এছাড়াও, আয়রনের ঘাটতি হলে চুল পড়ার আশঙ্কা থাকে। তাই চুল পড়া রোধ করতে ডায়েটে পালংশাক রাখুন।

ডিম: সুস্থ ও ঘন চুলের জন্য প্রোটিনের প্রয়োজন। ডিম প্রোটিনের সবচেয়ে ভালো উৎস। ডিমে রয়েছে চুলের বৃদ্ধির জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি উপাদান প্রোটিন এবং বায়োটিন যা চুল পড়া রোধে প্রয়োজন।

যেহেতু আমাদের চুল কেরাটিন নামক প্রোটিন দিয়ে তৈরি, তাই প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও ডিমে জিংক এবং সেলেনিয়াম থাকে যা চুলের জন্য উপকারী।

বেরি: এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ‘সি’ যা চুলের ফলিকলকে শক্তিশালী করে এবং চুলের গোড়া মজবুত করতে সহায়তা করে।

চুলের স্বাস্থ্যের বিশাল পার্থক্য দেখতে দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় যেকোনো ধরনের বেরি ফল রাখুন।

এছাড়াও, ভিটামিন ‘সি’ কোলাজেনের একটি দুর্দান্ত উৎস; যা আপনার চুলের বৃদ্ধি বাড়াতে প্রয়োজন। বেরিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট চুল ভাঙা রোধেও সাহায্য করে।

কাজু বাদাম: এতে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, জিংক, ভিটামিন ই, বি১ ও বি৬ এবং সেলেনিয়াম রয়েছে। যেগুলো চুলের বৃদ্ধিতে চমৎকার পুষ্টি উপাদান। এই উপাদানগুলো চুলের বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ। কাজু বাদাম গোড়া থেকে চুলের পুষ্টি জোগায় এবং চুলকে করে ঝলমলে ও মজবুত।

সিয়া সিড: এতে অনেক উপকারী প্রোটিন, কপার ও ফসফরাস রয়েছে যা চুলকে ঘন ও মজবুত করতে সহায়তা করে। এ ছাড়া এতে থাকা কপার চুলের ভঙ্গুরতা রোধ করে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এই বিভাগের আরও খবর